bdstall.com

বোস স্পিকার এর দাম

 বোস স্পিকার কেনাকাটা

বোস ব্র্যান্ডের স্পীকার শুধু বিশ্বেই জনপ্রিয় নয় এর উন্নতমানের সাউন্ড এবং ক্লিয়ার ভোকালের জন্য বাংলাদেশেও জনপ্রিয়তা ব্যাপক। বোস ব্র্যান্ড তার স্পীকার গুলোতে নতুন নতুন বিশেষত্ব, ডিজাইন, এবং সাউন্ড কোয়ালিটি দিয়ে বাজারের প্রতিযোগিতা করছে। পোর্টেবল থেকে শুরু করে বড় সাইজের বোস স্পীকার বাংলাদেশের বাজারে পাওয়া যায়।

বোস স্পীকারের কেন কিনবেন?

১। বোস স্পীকারে আছে অসাধারন পরিস্কার সাউন্ড তাই এটি যেকোন প্রোগ্রামে ভয়েসের জন্য খুব ভাল।

২। বোস স্পীকারের নয়েস কেনসেলিং খুব উন্নমানের তাই এটি ফিল্টার করে উন্নমানের সাউন্ড পরিবেশন করে।

৩। বোস স্পীকার অনেকদিন ধরে ভাল সেবা প্রদান করে।

৪। বোস স্পীকারের বেস এবং ট্রেবলে খুব উন্নতমানের।

৫। অনেক বোস স্পীকার পানি নিরোধকহ হয় যেটি বাংলাদেশের আবহাওয়ায় বাইরে ব্যবহার করলে নিরাপদ।  

বাংলাদেশে বোস স্পীকারের দাম কত?

বাংলাদেশে বিভিন্ন রকম দামের বোস স্পীকার পাওয়া যায়। একটি ভালো মানের বোস স্পীকার এর দাম মাত্র ১৬,৫০০ টাকা থেকে শুরু। এই স্পীকারটি ওয়াটার রেসিস্টেন্টম, ব্যটারি চালিত এবং ব্লুটুথ কানেকশনের মাধ্যমে পরিচালিত হয়। এই স্পীকারটি ৮ ঘন্টা ব্যাটারির সাহায্যে চলতে পারে।

বোস স্পীকার কি টিভির জন্য উপযুক্ত?

বোস স্পীকারের অনেক গুলোর মডেল আছে যেগুলো স্পেশালভাবে টিভির জন্য তৈরি করা হয়েছে। এগুলোকে বোস সাউন্ডবারও বলা হয়। এই বোস সাউন্ডবারগুলোতে ৩টি অডিও ইনপুট সিস্টেম আছে। এগুলো হলোঃ ওয়াইফাই, ব্লুটুথ এবং অ্যাপল এয়ারপ্লে-২। অনেক বোস সাউন্ডবার স্পীকার রিমোটের সাহায্যে নিয়ন্ত্রণ করার সুবিধা পাওয়া যায়।  

বোস ব্র্যান্ডের হোম থিয়েটার স্পীকার গুলো কেমন?

বোস হোম থিয়েটারগুলোর সাউন্ড কোয়ালিটি খুব উচ্চ মানের হয়ে থাকে এবং সাধারণত ব্লুটুথ প্রযক্তির ব্যবহার হয়। এই হোম থিয়েটার গুলোতে এইচডিএমআই পোর্ট ও থাকে ফলে ডেক্সটপ কম্পিউটারেও সংযোগ করা যায়।

বোস স্পীকারের কাস্টমার সাপোর্ট কেমন?

বাংলাদেশে বোস স্পীকার গুলোর সাথে ৭ দিনের রিপ্লেসমেন্ট গ্যারান্টি এবং ১ বছরের সার্ভিস ওয়ারেন্টি থাকে। এই গ্যারান্টি এবং ওয়ারেন্টির মাধ্যমে বোস স্পীকার বাংলাদেশে অনেক বেশি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।