bdstall.com

মোবাইল ফোনের দাম ২০২২

বাংলাদেশের সেরা মোবাইল ফোন এর মূল্য তালিকা 2021 এবং July, 2022

মোবাইল ফোন মডেল বাংলাদেশে দাম
Soyes 7S Quad Core 1GB RAM 8GB ROM 2.4" Mini Android Phone ৳ ৫,৫০০
iPhone 13 Pro Max ৳ ১০২,০০০
Apple iPhone 11 Pro ৳ ৫৪,০০০
Apple iPhone 12 Mini ৳ ৪৫,৫০০
Pen Mobile ৳ ৩,৮৫০
Apple IPhone 8 Plus Hexa Core 3GB RAM 5.5" 12MP Dual Camera ৳ ৩০,৯৯৯
Nokia 105 2017 ৳ ১,৬০০
Nokia 210 ৳ ২,১০০
Maxtel Max 13 Folding Phone ৳ ১,৬৯০
Xiaomi Redmi 5 4GB / 32GB ৳ ৭,৪৭৫

আমাদের দৈনন্দিন জিবনে সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাক্টিভিটি, ফোনে কথা বলা, ভিডিও দেখা সব কিছুতেই মোবাইল ফোন ব্যবহারে করে থাকি বিশেষ করে স্মার্টফোনে। তাই কেনার আগে ব্র্যান্ড, মডেল, ডিজাইন, বাজেট, ইত্যাদি নিয়ে পরতে হয় অনেক দো-টানায়। মনের ভিতরে তৈরি হয় নানান জিজ্ঞাসার। তাই এই জিজ্ঞাসাকে অবসান করতে জেনে নিন ২০২১ সালের ভালো মানের মোবাইল কেনার কিছু টিপস।

মোবাইলর ধরন

বাংলাদেশে দুই ধরনের মোবাইল পাওয়া যায় স্মার্টফোন এবং বাটন ফোন। স্মার্টফোন সবচেয়ে জনপ্রিয় কারণ এটি শক্তিশালী অপারেটিং সিস্টেম যেমন অ্যান্ড্রয়েড, আইওএস, টাইজেন দ্বারা চালিত। বাটন ফোন ২য় ফোন হিসেবে দারুণ। বাংলাদেশের অনেক প্রবীণ মানুষ কম দাম এবং ব্যবহারযোগ্য বৈশিষ্ট্যটির জন্য বাটন ফোন পছন্দ করেন। কিছু বাটন ফোন আকারে খুব ছোট বলে বাংলাদেশে এগুলো মিনি ফোন নামে পরিচিত

নেটওয়ার্ক

বাংলাদেশে বর্তমানে ৩জি, ৪জি এবং ৫জি নেটওয়ার্ক আছে। আপনার বাজেট অনুযায়ী সর্বোচ্চটি কেনার চেষ্টা করুন। এবং মনে রাখবেন যে উপরের সংস্করণটি নিম্ন সংস্করণকে সমর্থন করবে, যার অর্থ আপনি যদি ৫জি গ্রহণ করেন তবে আপনি ৪জি এবং ৩জি চালাতে পারেন।
 
ডুয়াল সিম

বাংলাদেশে নতুন যেসব মোবাইল ফোন পাওয়া যায় তার অধিকাংশই ডুয়েল সিম। যাইহোক, কিছু সেট এক সিমের হতে পারে। ব্যবহৃত মোবাইল যেগুলো সাধারণত বিদেশ থেকে আমাদানি করে বিক্রি হয় সেগুলো সিঙ্গেল সিমের হয়ে থাকে।

ডিসপ্লের

সাইজঃ যদি ইন্টারনেট বেশি ব্যবহার করেন তবে বড় স্ক্রীনের মোবাইল যেমন সর্বনিম্ন ৫-৬ ইঞ্চির নেয়া উচিৎ। আইফোন এবং কিছু পুরাতন মডেলের মোবাইলের স্ক্রীন অনেক ছোট হয়ে থাকে। তবে সেগুলো বেশ বহনযোগ্য।   

রেজোলিউশন: বর্তমানের বেশিরভাগ মোবাইল এইচডি স্ক্রিনের হয়ে থাকে। তবে ফুল এইচডি আপনাকে আরও ভালো কোয়ালিটি দেবে।

সুরক্ষা: গরিলা বা অন্যান্য সুরক্ষিত কাচ থাকলে আলাদা করে আর স্ক্রীন প্রটেকটর এর দরকার নেই।

ঘনত্ব: এই বিষয়টি অনেকে গুরুত্ব দেয় না কিন্তু এটি দিয়েই স্ক্রীনের মান নির্ণয় করা যায়। সর্বনিম্ন ২৬০ পিপিআই নেয়ার চেষ্টা করবেন। আর ৪০০ হলে খুব ভাল কোয়ালিটির ছবি দেখতে পারবেন।

র‌্যাম

সাধারণ অ্যাপ্লিকেশানগুলো চালাতে ২ জিবিই যথেষ্ট। তবে ৩ জিবি হলে ভাল হয়। আর মোবাইলে আধুনিক গেম খেলতে হলে ৪ জিবি থাকা দরকার।

স্টোরেজ

সর্বনিম্ন ১৬ জিবি হলে চলবে। আর অতিরিক্ত স্লট আছে কিনা দেখে নিন। যদি না থাকে তবে ১৬ জিবির বেশি নিলে ভাল হয়। পুরাতন মডেলের মোবাইলে সাধারণত কম স্টোরেজ থাকে তবে কার্ড স্লট থাকে।

প্রসেসর

ডুয়েল কোর একটু স্লো হতে পারে তবে বাজেট কম হলে চলবে। আর কোয়াড কোর সিপিউ হলে ভাল চলবে। নতুন মডেলের মোবাইলে অক্টাকোর সিপিউ থাকে।

ক্যামেরা

মেগাপিক্সেল দেখে নয় ক্যামেরার লেন্স কোয়ালিটি দেখে কিনুন। রাতে বা অল্প আলোয় ছবি তুলুন তাতে আপনি ক্যামেরার লো-লাইট পারফর্মেন্স সম্বন্ধে জানতে পারবেন।
 
সেন্সর 

ডিজিটাল কম্পাস, গাইরোস্কোপ, এসপিও2 বা পাল্স অক্সিমিটার, অ্যাক্টিভিটি ট্র্যাকার থাকলে আপনি অনেক কাজে সুবিধা পাবেন।

বাজেট
 
কম দামের অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন মোবাইল বাংলাদেশে প্রায় ৩,০০০ টাকা থেকে শুরু যা সাধারণত চীন বা বাংলাদেশে তৈরি হয়। একটি টিপ হল এই বাজেটে পুরনো মডেলের ফ্ল্যাগশিপ ফোন কেনা তাহলে উন্নতমানের হার্ডওয়্যার কম টাকায় পাওয়া যাবে। আপনার বাজেট অনুযায়ী কিছু মোবাইল তালিকা-

৫০০০-৬০০০ টাকার মোবাইল

৭০০০-৮০০০ টাকার মোবাইল

৯০০০-১০০০০ টাকার মোবাইল