bdstall.com

মাউস এর দাম ২০২৩ & ২০২৪

আইটেম ১-২০ এর ২৮
বাংলাদেশে সংশ্লিষ্ট মাউস এর দাম

কম্পিউটারের সকল কাজ মসৃণভাবে নেভিগেশন এবং সুনির্দিষ্ট নিয়ন্ত্রণের জন্য নির্ভরযোগ্য এবং দক্ষ ডিভাইস হচ্ছে মাউস। সাধারণত ওয়েব ব্রাউজিং থেকে শুরু করে জটিল ডিজাইন এবং আকর্ষণীয় গেমিং করার ক্ষেত্রে মাউসের ভূমিকা অপরিহার্য। বর্তমানে, উন্নত অপটিক্যাল বা লেজার সেন্সর যুক্ত, সামঞ্জস্যযোগ্য ডিপিআই সেটিংস এবং প্রোগ্রামেবল বাটনের সমন্বয়ে তৈরি মাউস সচারাচর পাওয়া যায়। এছাড়াও, বিডিতে লজিটেক, এ৪টেক, এইচপি, ডেল, হেভিট এর মত জনপ্রিয় ব্র্যান্ডের ওয়্যারড, ওয়্যারলেস এবং গেমিং সহ বিভিন্ন ডিজাইনের মাউস সাশ্রয়ী দামে পাওয়া যায়।

মাউসের ধরণ

ওয়্যারড মাউসঃ ওয়্যারড মাউস সাধারণত কম্পিউটার এবং মাউসের মধ্যে তারের মাধ্যমে সংযোগ করা হয়। এই ধরণের মাউস পুরনো টেকনোলোজি হলেও যথেষ্ট নির্ভুল, ট্র্যাকিং এবং লেটেন্সির ক্ষেত্রে চমৎকার পারফরম্যান্স প্রদান করে। তাছাড়া, ওয়্যারড মাউস ব্যবহারে কোনো ব্যাটারির প্রয়োজন হয় না।

ওয়্যারলেস মাউসঃ ওয়্যারলেস মাউস সাধারণত তারবিহীন বা কর্ডলেস মাউস, যা সাধারণত কম্পিউটার বা ল্যাপটপের সাথে ব্যবহারের ক্ষেত্রে তারের প্রয়োজন হয় না। এই ধরণের মাউস ব্যবহারের ক্ষেত্রে ইউএসবি রিসিভার বা আরএফ টেকনোলোজি ব্যবহার করে অপারেট করা যায়। ফলে, ওয়্যারলেস মাউস ব্যবহারে নির্দিষ্ট দূরত্ব থেকে আরামদায়ক ভাবে দীর্ঘ সময় পিসি অপারেট করা যায়। তাছাড়া, বাংলাদেশে সাশ্রয়ী দামে ২.৪ গিগাহার্জ ফ্রিকোয়েন্সি সম্পন্ন ওয়্যারলেস মাউস পাওয়া যায়।

ব্লুটুথ মাউসঃ ওয়্যারলেস মাউসের মতই ব্লুটুথ টেকনোলোজির সমন্বয়ে তৈরি ব্লুটুথ মাউস। তাছাড়া, প্রায় সকল ল্যাপটপ বিল্ট-ইন ব্লুটুথ কানেক্টিভিটি থাকায়, ব্লুটুথ মাউস ব্যবহারে অতিরিক্ত কোনো ইউএসবি রিসিভার ব্যবহারের প্রয়োজন হয় না। তাই, ব্লুটুথ মাউস ব্যবহারের ক্ষেত্রে শুধুমাত্র ল্যাপটপে ব্লুটুথ কানেক্ট করে অপারেট করা যায়।

গেমিং মাউসঃ গেমিং মাউস সাধারণত ওয়্যারড ও ওয়্যারলেস উভয় ধরণেই পাওয়া যায়। এই ধরণের মাউস সাধারণত উচ্চ ডিপিআই, প্রোগ্রামেবল বাটন, কাস্টমাইজযোগ্য আরজিবি লাইট, এবং তীব্র গেমিং সেশনে কম ল্যাটেন্সি প্রদান করার পাশাপাশি এরগোনমিক ডিজাইনে তৈরি। তাছাড়া, গেমিং মাউস দিয়ে গেমিং করার পাশাপাশি দৈনন্দিন কাজে কম্পিউটার অপারেট করার ক্ষেত্রেও ব্যবহার করা যায়।

অপটিক্যাল মাউসঃ অপটিক্যাল মাউস সাধারণত এলইডি বা ইনফ্রারেড টেকনোলোজির সমন্বয়ে তৈরি করা হয়েছে। এই ধরণের মাউস মূলত গতিবিধি ট্র্যাক করতে ব্যবহার করা হয়। তাছাড়া, অপটিক্যাল মাউস কোনো প্রকার মাউস প্যাডের প্রয়োজন ছাড়াই বিভিন্ন পৃষ্ঠে সুনির্দিষ্টভাবে কার্সার নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

মাউসের দাম কত?

মাউসের দাম সাধারণত ব্র্যান্ড, ফিচার, গুণমান এবং ধরণের উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হয়ে থাকে। বিডিতে মাউসের দাম ৩০০ টাকা থেকে শুরু, যা সাধারণত অপটিক্যাল সেন্সর যুক্ত ওয়্যারড মাউস। এছাড়াও, ওয়্যারলেস, ব্লুটুথ, আরএফ টেকনোলোজি যুক্ত মাউস বিডিতে ১,০০০ টাকা থেকে ২,০০০ টাকা বাজেটের মধ্যে পাওয়া যায়।

ওয়্যারলেস মাউসের সুবিধা কি ও দাম কত?

  • ওয়্যারলেস মাউস ব্যবহারে তার সংযোগের প্রয়োজন নেই, ফলে ল্যাপটপের সাথে স্বাধীনভাবে ব্যবহার করা যায়।
  • ওয়্যারলেস মাউস ডেস্ক বিশৃঙ্খলা হ্রাস করে এবং বিরক্তিকর কেবলটি ছাড়াই কাজ চালিয়ে যেতে সহায়তা করে। এটি চালাতে ব্যাটারির প্রয়োজন হয়।
  • ওয়্যারলেস মাউস খুবই হালকা ওজনের হওয়ায় সহজেই যেকোনো স্থানে ভ্রমণে সহজেই বহণ করা যায়।
  • ওয়্যারলেস মাউস যেকোনো উপস্থাপনা এবং মিটিংয়ের ক্ষেত্রে যথেষ্ট কার্যকর ভূমিকা পালন করে।
  • ল্যাপটপ কিংবা মনিটরিং ডিভাইসের সাথে সেটআপ এবং সংযোগের ক্ষেত্রে তারের ক্ষতি হওয়ার ঝুঁকি নেই বললেই চলে।
  • ওয়্যারলেস মাউস বিভিন্ন ডিভাইস এবং অপারেটিং সিস্টেমের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ ভাবে ব্যবহার করা যায়।
  • এছাড়াও, ওয়্যারলেস মাউস ব্যবহারের মাধ্যমে নির্দিষ্ট দূরত্বে অবস্থান করে যেকোনো ধরণের ভিডিও এবং মাল্টি মিডিয়া রিলেটেড কাজ নিয়ন্ত্রণ করা যায়।
  • বিডিতে ওয়্যারলেস মাউসের দাম ৬৫০ টাকা থেকে শুরু, যা সাধারণত ওয়্যারলেস কানেক্টিভিটি সম্পন্ন এবং প্রায় ১০ মিটার দূরত্ব পর্যন্ত ব্যবহার করা যায়। এছাড়াও, অপটিক্যাল সেন্সর, ২.৪ গিগাহার্জ ফ্রিকুয়েন্সি সম্পন্ন এবং মাল্টিপল ডিভাইস এ ব্যবহার উপযোগী ওয়্যারলেস মাউস ১,৫০০ টাকা থেকে ৪,৫০০ টাকা বাজেটের মধ্যে পাওয়া যায়।

গেমিং মাউসের ফিচার সমূহ কি ও দাম কত?

  • গেমিংয়ের সময় অ্যাকুরেট কার্সার কন্ট্রোলের জন্য গেমিং মাউস নির্ভুল এবং কম লেটেন্সি প্রদান করে।
  • গেমিং মাউসে ইন-গেম কমান্ডে দ্রুত অ্যাক্সেসের জন্য কাস্টমাইজযোগ্য বাটন এবং ম্যাক্রো রয়েছে।
  • দীর্ঘসময় গেমিং সেশনে আরামদায়কভাবে ধরার জন্য গেমিং মাউস এরগোনমিক ডিজাইনে পাওয়া যায়।
  • এছাড়াও, গেমিং মাউসে অন-দ্য-ফ্লাই সেন্সিটিভিটি সমন্বয়ের জন্য সামঞ্জস্যযোগ্য ডিপিআই সেটিংস রয়েছে।
  • গেমিংকে আকর্ষণীয় করে তুলতে গেমিং মাউস প্রোগ্রামেবল আরজিবি লাইট সরবারহ করে।
  • তীব্র গেমিং ব্যবহার সহ্য করার পাশাপাশি দীর্ঘস্থায়ী ব্যবহারের নিশ্চয়তা প্রদানে উন্নত স্থায়িত্ব এবং গুণমান সম্পন্ন বিল্ড কোয়ালিটি প্রদান করে।
  • প্রতিযোগিতামূলক গেমিংয়ের জন্য গেমিং মাউস ইনপুট ল্যাগ হ্রাস করে পাশাপাশি উন্নত ট্র্যাকিং এবং দ্রুত রেসপন্সিভ হয়ে থাকে।
  • বিডিতে গেমিং মাউসের দাম ৫০০ টাকা থেকে শুরু, যা সাধারণত আল্ট্রা কোয়াইট ও লো-ফ্রিকশন মাউস । এছাড়াও, উন্নত সেন্সর, আধুনিক টেকনোলোজি এবং এরগোনমিক ডিজাইনে তৈরি গেমিং মাউস বিডিতে ১,২০০ টাকা থেকে ২,০০০ টাকা বাজেটের মধ্যে পাওয়া যায়।