bdstall.com

গেমিং ল্যাপটপ এর দাম

গেমিং এখন শিশু, তরুণ বা এমনকি প্রাপ্তবয়স্কদের জীবনের অংশ। গেমিং ল্যাপটপের কোন সঠিক স্পেসিফিকেশন নেই। এটা নির্ভর করে আপনি কোন ধরনের গেম খেলতে চান এবং আপনার ল্যাপটপ এটি পরিচালনা করতে সক্ষম। বেশিরভাগ গেমিং ল্যাপটপে উচ্চ গ্রাফিক্স প্রসেসিং রয়েছে যা জটিল গ্রাফিক্সের যেকোনো গেম পরিচালনা করতে পারে। তাই, আপনার বাজেট থাকলে গেমিং ল্যাপটপ কিনুন এবং সম্প্রতি বাংলাদেশে গেমিং ল্যাপটপের দাম অনেক কমে গিয়েছে এবং যে কেউ এটি কিনতে পারবে। তাছাড়া, আপনি এই ল্যাপটপ দিয়ে অন্যান্য কাজ যেমন গ্রাফিক্স এডিটিং, ফটো এডিটিং, ভিডিও এডিটিং এবং অ্যানিমেশন করতে পারবেন। আসুন কিছু টিপস দেখি কিভাবে আপনি নিখুঁত গেমিং ল্যাপটপ বেছে নিতে পারেন।

প্রসেসিং ক্ষমতা: এর অর্থ আপনার প্রসেসরের ক্ষমতা। কোর আই-৫ প্রসেসরের লেটেস্ট জেনারেশন বেছে নিন কারণ এতে যথেষ্ট প্রসেসিং পাওয়ার আছে। সর্বশেষ আই-৫ প্রসেসরটি বেশিরভাগ গেমগুলিকে খুব কার্যকরভাবে পরিচালনা করতে পারে। সর্বশেষ প্রজন্মের কোর আই-৭ দিয়ে খেলার সময় এটি আপনাকে  বুস্ট দিবে এবং আপনি যে কোন আপকামিং গেমের জন্যও প্রস্তুত। এছাড়াও, আপনি এএমডি ব্যান্ডের অ্যাথলন বা রাইজেন সিরিজের অনুরূপ প্রসেসর গেমিংয়ের জন্য নির্বাচন করতে পারেন।

গ্রাফিক্স প্রসেসিং: এটি গেমিংযের মূল জিনিস যার মানে এটি আপনার জটিল গ্রাফিক্স কত দ্রুত এবং সঠিকভাবে প্রক্রিয়া করতে পারে। অবশ্যই আপনার যথেষ্ট গ্রাফিক্স র‌্যাম সহ ডেডিকেটেড গ্রাফিক্স কার্ডের একটি ল্যাপটপ প্রয়োজন। ভালো মানের কার্ড যেকোনো জটিল গ্রাফিক্স পরিচালনা করতে পারে। তাই কমপক্ষে ৪ মেগা মেমরি সহ একটি গ্রাফিক্স কার্ড বেছে নিন। আপনি যত বেশি মেমরি নেবেন, তত মসৃণ কর্মক্ষমতা পাবেন। মনে রাখবেন সাধারণত এই কার্ডটি পরবর্তীতে পরিবর্তন করতে পারবেন না তাই আগেই সিদ্ধান্ত নিন। কিছু ল্যাপটপে অতিরিক্ত স্লট রয়েছে তাই আপনি পরে এক্সটার্নাল গ্রাফিক্স কার্ড অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন।

র‍্যাম: প্রচুর পরিমাণে র‍্যাম সমস্ত কাজকে খুব সুন্দর করে তুলবে। ১৬ গিগাবাইট র‌্যাম হলে খুব ভাল কাজ করবে। এছাড়াও, এটি আপগ্রেড করার সুযোগ রয়েছে তাই পরবর্তীতে কতটা র‍্যাম অন্তর্ভুক্ত করা যাবে তার স্পেসিফিকেশনটি দেখুন।

তাপ নিয়ন্ত্রণ করুন: প্রতিটি প্রসেসর এবং জিপিউতে সাধারণ হিট সিঙ্কে থাকে সাথে ল্যাপটপের ভেন্টিলেশন। ল্যাপটপে উচ্চ মানের গেম খেলার জন্য এটি যথেষ্ট নয়। বেশিক্ষণ খেললে তা অতিরিক্ত গরম হয়ে পুড়ে যেতে পারে। সুতরাং, অতিরিক্ত ভেন্টিলেশনের জন্য একটি উচ্চ মানের কুলার রেখে তাপ নিয়ন্ত্রণ করু।

স্ক্রিন: বেশিরভাগ গেমিং ল্যাপটপ ফুল এইচডি স্ক্রিন সহ আসে যা এখনকার গেমিং এর জন্য যথেষ্ট। ভবিষ্যতে সামঞ্জস্যপূর্ণতা এবং উচ্চ মানের পরিবেশের জন্য 4K স্ক্রীন সহ গেমিং ল্যাপটপ নিতে পারেন।

স্টোরেজ: দ্রুততম স্টোরেজ প্রয়োজন অন্যথায় এটি আপনার প্রসেসিং শক্তি এবং জিপিউ এর সাথে তাল মিলিয়ে কাজ করতে সক্ষম হবে না। NVMe এসএসডি প্রথম পছন্দ কারণ এতে রয়েছে সর্বাধুনিক প্রযুক্তি। সাটা এসএসডি ঠিকঠাক কাজ করবে। মনে রাখবেন সবচেয়ে বড় সাইজের এসএসডি নিন যাতে এটি একসাথে অনেক গেম ইনস্টল করতে পারে। এছাড়াও পৃথক স্লট রয়েছে কিনা দেখুন করুন যাতে প্রয়োজনে আরও উচ্চ গতির স্টোরেজ সংযুক্ত করা যায়।

স্পিকার: অনেকেই মনে করেন যে ভাল মানের সাউন্ড গেম খেলার অভিজ্ঞতা বাড়ায় তাই একাধিক স্পিকার সহ গেমিং ল্যাপটপ কিনুন যা আপনাকে ডলবি সাউন্ডের অভিজ্ঞতা দেবে। এতে অতিরিক্ত স্পিকার কেনা থেকে কিছুটা খরচ বাঁচবে।

কীবোর্ড এবং মাউস: ব্যাকলিট কীবোর্ড ভালো কাজ করবে যদি আপনি অন্ধকারে খেলতে অভ্যস্ত হন। কিন্তু এটি আপনার গেমিং এর উপর সামান্য প্রভাব ফেলেবে।

ওয়াইফাই এবং ল্যান: এটি নেটওয়ার্ক গেমিংয়ের যুগ তাই এটি নেটওয়ার্ক সংযোগের সর্বশেষ স্পেসিফিকেশন সমর্থন করে কিনা তা পরীক্ষা করে দেখুন।

একটি গেমিং ল্যাপটপের বাজেট কেমন হওয়া উচিত?

অন্যান্য ডিভাইসের তুলনায় ল্যাপটপের দাম এখন কম। বাংলাদেশে নতুন গেমিং ল্যাপটপের দাম শুরু হচ্ছে ৬০,০০০ টাকা থেকে। ৮০,০০০ টাকায় আপনি একটি ভালো মানের ল্যাপটপ পেতে পারেন। যদি আপনার বাজেট ১০০,০০০ টাকা বা তার বেশি থাকে তবে এটি এখন এবং পরবর্তী সময়ের জন্য অনেকদিন ভাল কাজ করবে।