bdstall.com

ডি-লিংক রাউটার এর দাম ২০২৪

আইটেম ১-৬ এর ৬

ডি-লিংক রাউটার কেনাকাটা

ডি-লিংক রাউটারের আধুনিক সব টেকনোলজির কারণে বাংলাদেশে ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। ডি-লিংক রাউটার তুলনামূলক সাশ্রয়ী মূল্যে পাওয়া যায়। তাছাড়া, তুলনামূলক ভালো স্পিড ও কভারেজ রেঞ্জ প্রদান করে। বিশেষ করে ব্যক্তিগত ব্যবহারের জন্য ডি-লিংক এর রাউটারি সেরা। এবং, ডি-লিংক রাউটারের হার্ডওয়ার কোয়ালিটি খুবি উন্নত মানের হয়ে থাকে।

ডি-লিংক রাউটারের বিশেষ বৈশিষ্ট্য কি কি?

কভারেজ রেঞ্জঃ ডি-লিংক রাউটারের কভারেজ রেঞ্জ তুলনামূলক অনেক বেশি। সাধারণত ডি-লিংক রাউটারের কভারেজ রেঞ্জ ২,০০০ স্কোয়ার ফিট থেকে ৪,০০০ স্কোয়ার ফিট পর্যন্ত হয়ে থাকে। তবে, মডেল ও অ্যান্টেনার ভিত্তিতে কভারেজ রেঞ্জ কম বেশি হতে পারে।

নেটওয়ার্ক স্পিডঃ ডি-লিংক এর বেশিরভাগ রাউটার গুলো ৩০০ এমবিপিএস স্পিড প্রদান করে। তবে, রাউটারের মডেল ও ওয়াই-ফাই প্রোটোকলের ভিত্তিতে নেটওয়ার্ক স্পিড রেট কম হতে পারে।

ওয়াই-ফাই প্রোটোকলঃ বেশিরভাগ ডি-লিংক রাউটার আইপিভি ৪ ও আইপিভি ৬ উভয় ওয়াই-ফাই প্রোটোকল সমর্থন করে।

ইন্টারনাল ওয়াই-ফাই অ্যান্টেনাঃ বেশিরভাগ ডি-লিংক রাউটারে এক্সটার্নাল অ্যান্টেনার পাশাপাশি ইন্টারনাল ওয়াই-ফাই অ্যান্টেনা থাকে। ফলে, তুলনামূলক সঠিক ভাবে নেটওয়ার্ক কভারেজ করতে পারে এবং একাধিক ডিভাইস সহজেই চালানো সম্ভব হয়।

ডি-লিংক রাউটার কেন কিনব?

  • বাংলাদেশে তুলনামূলক কম দামে ডি-লিংকের রাউটার পাওয়া যায়।
  • ডি-লিংকের রাউটার তুলনামূলক দ্রুত ডাটা ট্রান্সফার করতে পারে।
  • ডি-লিংকের রাউটারে উন্নতমানের সিকিউরিটি সিস্টেম আছে।
  • ডি-লিংকের রাউটারের সাথে কানেক্টেড নির্দিষ্ট ডিভাইসকে ব্লক করা যায়।
  • তুলানামূলক সহজ পদ্ধতিতেই ডি-লিংকের রাউটার কনফিগার করা যায়।
  • ডি-লিংকের সব রাউটার গুলোতে কমপক্ষে ৪টি ল্যান পোর্ট থাকে।
  • প্রায় সব ধরনের ওয়াই-ফাই প্রোটোকল সমর্থন করে।
  • তাছাড়া, ডি-লিংকের রাউটার দীর্ঘদিন ব্যবহার করা যায়।

বাংলাদেশে ডি-লিংক রাউটারের দাম কত?

বাংলাদেশে ডি-লিংকের রাউটারের কোয়ালিটি, অ্যান্টেনা, ও টেকনোলোজির ভিত্তিতে দামের তারতম্য দেখা যায়। ডি-লিংকের ২-অ্যান্টেনার রাউটারের দাম টেকনোলোজির ভিত্তিতে বিডিতে ১,০০০ টাকা থেকে ২,৬০০ টাকার মধ্যে হয়ে থাকে। অন্যদিকে, ডি-লিংকের ৩-অ্যান্টেনার রাউটার গুলো ১,৫০০ টাকা থেকে ২,১০০ টাকার মধ্যে পাওয়া যায়। এবং, ডি-লিংকের ৪-অ্যান্টেনার রাউটার গুলো ১,৩০০ টাকা থেকে ৩,০০০ টাকার মধ্যে হয়ে থাকে। এছাড়াও, ডি-লিংকের সিম সাপোর্টেড রাউটার পাওয়া যায় তবে সেগুলোর দাম তুলনামূলক বেশী হয়ে থাকে।

সচরাচর জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী

প্রশ্নঃ ডি-লিংক ২-অ্যান্টেনা রাউটারের মাধ্যমে একসাথে কয়টি ডিভাইসে ইন্টারনেট চালানো যাবে?

উত্তরঃ ডি-লিংকের ২-অ্যান্টেনা রাউটারের মাধ্যমে সর্বোচ্চ ২,০০০ স্কোয়ার ফিটের মধ্যে ঝামেলা মুক্তভাবে ৪ থেকে ৬টি মোবাইল ও ল্যাপটপ বা কম্পিউটারে ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক ব্যবহার করতে পারবেন। তবে, শুধুমাত্র মোবাইল ব্যবহার করলে একই সাথে ৮ থেকে ১০টি মোবাইল ব্যবহার করা যাবে। সেক্ষেত্রে, ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক অপারেটরের সাথে যোগাযোগ করে ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক ফ্রিকোয়েন্সি প্রয়োজন মত বাড়িয়ে নিতে হবে।

প্রশ্নঃ ডি-লিংকের ৪-অ্যান্টেনা রাউটারের কভারেজ রেঞ্জ কতটুকু?

উত্তরঃ ডি-লিংকের ৪-অ্যান্টেনা রাউটারের মাধ্যমে ৪,০০০ স্কোয়ার ফুটের মধ্যে যেকোন ডিভাইস সংযুক্ত হতে পারে এবং ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক ব্যবহার করতে পারে।

প্রশ্নঃ কিভেবে ডি-লিংক রাউটার সেটআপ করব?

উত্তরঃ মাত্র কয়েকটি পদক্ষেপ অনুসরণ করেই ডি-লিংকের রাউটার সহজেই সেটআপ করা যায়। ডি-লিংক রাউটার সেটআপ করার সঠিক নিয়ম উল্লেখ করা হলঃ

  • স্টেপ ১ঃ ডি-লিংক রাউটারটি চালু করতে হবে।
  • স্টেপ ২ঃ মোবাইল বা কম্পিউটারের সাথে ইথারনেট কেবল বা ওয়ারলেস সিস্টেম ব্যবহার করে কানেক্ট করতে হবে।
  • স্টেপ ৩ঃ ডি-লিংকের রাউটারের সাথে সংযুক্ত থাকা ডিভাইসে যেকোন ব্রাউজার ওপেন করতে হবে।
  • স্টেপ ৪ঃ ব্রাউজারের সার্চবারে ১৯২.১৬৮.০.১ বা ১৯২.১৬৮.১.১ আইপি অ্যাড্রেস লিখে সার্চ করতে হবে।
  • স্টেপ ৫ঃ লগ-ইন পেজ প্রদর্শিত হবে। সেখানে ইউজারনেম অপশনে “Admin” এবং পাসওয়ার্ড অপশনে ফাকা রেখে লগ-ইন অপশনে ক্লিক করতে হবে।
  • স্টেপ ৬ঃ অ্যাডমিন প্যানেল প্রদর্শিত হবে। বাম দিকে থাকে সেটআপ অপশনে ক্লিক করতে হবে।
  • স্টেপ ৭ঃ একটি পপআপ মেসেজ আসবে। সেখানে নেক্সট অপশনে ক্লিক করতে হবে।
  • স্টেপ ৮ঃ ইজি সেটআপের জন্য নতুন  পেজ ওপেন হবে। এখানে কানেকশন টাইপ PPPoE সিলেক্ট করতে হবে এবং নেক্সট অপশনে ক্লিক করতে হবে।
  • স্টেপ ৯ঃ নির্দিষ্ট আইএসপি এর ইউজারনেম ও পাসওয়ার্ড দিতে হবে। এলাকা ভিত্তিক Wi-Fi নেটওয়ার্ক প্রদানকারীর কাছ থেকে ISP সংগ্রহ করুন। এখন, নেক্সট ক্লিক করুন। 
  • স্টেপ ১০ঃ ইজি সেটআপের শেষ পেজ ওপেন হবে। এখানে, SSID অপশনে ওয়াই-ফাই এর নাম এবং কি অপশনে পাসওয়ার্ড সেট করতে পারবেন। এবং অন্যান্য সেটআপ করতে পারবেন। এখন, নেক্সট ক্লিক করুন।
  • স্টেপ ১১ঃ ইজি সেটআপ শেষ করার জন্য একটি পেজ প্রদর্শিত হবে। এখানে ফিনিশ অপশনে ক্লিক করুন। তারপর কয়েক সেকেন্ড সময় নিয়ে সেটআপ সম্পন্ন হবে। এবং, ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবেন।

প্রশ্নঃ গেমিং এর জন্য ডি-লিংকের কোন রাউটারটি ভালো হবে?

উত্তরঃ সাধারণত ডি-লিংকের সকল রাউটার ব্যবহার করে গেমিং করা যাবে। তবে, ডি-লিংক ডিআইআর-৬৫০আইএন ৪-অ্যান্টেনা বিশিষ্ট রাউটারটি গেমিং এর জন্য সেরা।

বাংলাদেশের সেরা ডি-লিংক রাউটার এর মূল্য তালিকা June, 2024

ডি-লিংক রাউটার মডেল বাংলাদেশে দাম
D-Link DWR-932C 150Mbps 4G LTE Pocket Mobile Router ৳ ৩,৯৯৯
D-Link DIR-615X1 N300 300Mbps Wireless Router ৳ ১,০১০
D-Link DIR-615 Wireless N300 2 Antenna 300 Mbps Router ৳ ১,০০০
D-Link DSL-2750U Wireless N 300Mbps 2 Antenna ADSL Router ৳ ২,৩৫০
D-Link DWR-921 4G LTE SIM Router ৳ ৫,৬০০